বান্দরবানে ট্রান্সপোর্ট ব্যবসায়ীর দখলে স্কুল গেইট: একে অন্যকে দুষছেন সংশ্লিষ্টরা

স্কুলের গেইট দখল করে এভাবেই দেদারসে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে ট্রান্সপোর্ট কোম্পানী।

বান্দরবানে স্কুলের গেইট দখল করে দেদারসে ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে ট্রান্সপোর্ট কোম্পানী। সকালে স্কুল খোলার আগেই বিশাল কাভার্ড ভ্যান থেকে মালামাল নামাতে শুরু করেন দলে দলে শ্রমিক। এরপর আবার ছোট ছোট ভ্যান, পিকআপে বোঝাই করে সেসব মালামাল চলে যাচ্ছে বিভিন্ন জায়গায়। এসবকে কেন্দ্র করে সেখানে বেশ কিছু ঝুপড়ি দোকানসহ বসে গেছে ছোটখাট একটা বাজার।

বান্দরবানের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ঘটনা এটি।

সম্প্রতি সরেজমিন পরিদর্শণে দেখা যায়, সকাল থেকেই স্কুলের গেইটে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে দলে দলে শ্রমিকের শোরগোল আর মালামাল ওঠানামার ব্যস্ততা। এর মাঝেই ট্রাক-পিকআপের ফাঁক গলে স্কুলে ঢুকছে শিশুরা। সন্তানকে স্কুলে পৌঁছে দিতে এসে বিব্রতকর অবস্থায় পড়ছেন নারী অভিভাবকরাও।

ট্রান্সপোর্টের ব্যবসাকে কেন্দ্র করে স্কুল গেইটে গড়ে উঠেছে ঝুপড়ি দোকানের ছোটখাট একটা বাজার।

স্কুলের বাউন্ডারির ভেতরে সন্তানের ক্লাস শেষ হবার অপেক্ষায় থাকা মা আমেনা বেগম জানান, স্কুলের গেইটে এ রকম শোরগোল আর বিশৃঙ্খলা মেনে নেয়া যায় না।

নিউ গুলশান থেকে আসা রেখা মল্লিক জানান, একবার আমরা টমটম থেকে নামার সময় বড় কাভার্ড ভ্যানটা পেছন দিকে চলে আসছিলো। আর একটু হলে আমাদের সেই ট্রাকের নিচে চাপা পড়তে হতো।

একইভাবে ক্ষোভ জানালেন অভিভাবক রিকেল চাকমা, এসাইংচিংসহ অনেকেই।

দি বান্দরবান রাঙামাটি পরিবহন সংস্থার কর্মকর্তা মোঃ জাকির হোসেন জানান, প্রতিদিন আমাদের কয়েক গাড়ি মালামাল আসে। ডিসি বাংলোর সামনে আমাদের গুদাম আছে। কিন্তু সেখানে রাস্তায় গাড়ি রাখতে না পারায় আমরা এখানে এসে মালামাল লোড-আনলোড করি।

তিনি আরো জানান, কয়েক মাস আগে করোনার কারণে স্কুল যখন পুরোপুরি বন্ধ ছিলো তখন মাঠ সংস্কারের সময় অমল বাবু আমাদেরকে এখানে মালামাল ওঠানামা করতে বলেছেন।

এভাবে ভারী যানবাহন আসা যাওয়া করার কারণে স্কুলে ঢোকা এবং বের হওয়ার সময় মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে শিশুরা।

বান্দরবান পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি অমল কান্তি দাশ জানান, এই ট্রান্সপোর্ট কোম্পানীকে আমি চিনিই না। ট্রান্সপোর্ট কোম্পানী নিজেরা ডিপো ভাড়া নিয়ে ব্যবসা করবে। এদেরকে ফ্রি জায়গা দেওয়া কি আমাদের কাজ?

স্কুলের প্রধান শিক্ষক জাহেদুল আলম জানান, স্কুলের গেইটে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে এ ধরনের ব্যবসা মোটেও কাম্য নয়। এতে আমাদের শিক্ষার্থীরা ঝুঁকির মুখে রয়েছে। তাছাড়া ঝুপড়ি দোকানপাট হওয়াতে স্কুলের পরিবেশও নষ্ট হচ্ছে। আমরা এদেরকে এখান থেকে উচ্ছেদ করার জন্য পৌরসভার মেয়র বরাবরে আবেদন করেছি। কিন্তু কোনো কাজ হয়নি।

পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বেবী জানান, আমার জানামতে স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে পৌরসভায় কোনো আবেদন আসেনি। তারা কোথায় কার কাছে আবেদন করেছে আমি জানিনা। তবে স্কুলের গেইটে এভাবে প্রতিবন্ধকতা কোনোভাবেই মেনে নেয়া হবে না। এ ব্যাপারে আমরা এ্যাকশানে যাচ্ছি।

শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য